দ্বিতীয় স্ত্রীকে পুড়িয়ে মারার অভিযোগে স্বামী ও প্রথম স্ত্রীর যাবজ্জীবন বাঁকুড়ায়

0
227

নিজস্ব প্রতিনিধি,বাঁকুড়াঃ দ্বিতীয় স্ত্রীকে পুড়িয়ে মারার অভিযোগে স্বামী ও প্রথম স্ত্রীকে যাবজ্জীবন কারাদন্ডের নির্দেশ দিল আদালত। আজ বাঁকুড়া জেলা আদালতের চতুর্থ অতিরিক্ত দায়রা বিচারক অভিযুক্ত ওই দু’জনের যাবজ্জীবন কারাদন্ডের নির্দেশ দিয়েছে। আদালত সূত্রে জানা গেছে,বাঁকুড়ার গঙ্গাজলঘাটি থানার ভাড়াডিহি গ্রামের পেশায় চাষী হারু বাউরীর সাথে ২০১১ সালে বিয়ে হয়ে পদ্মা বাউরীর। ২০১৫ সালে পদ্মা স্বামীকে ছেড়ে অন্যত্র চলে গেলে ওই বছরই হারু বাউরী রীনা বাউরীকে বিয়ে করে। দ্বিতীয় বিয়ের পরই হারু বাউরীর বাড়িতে ফিরে আসে প্রথম স্ত্রী পদ্মা। ফিরে আসার পর থেকেই দুই সতীনের বিবাদ শুরু হয়। ২০১৬ সালে  ২ নভেম্বর বাড়িতে দ্বিতীয় স্ত্রী রীনা যখন বাড়িতে বসে টিভি দেখছিলেন সেই সময় স্বামী হারু বাউরী ও তার প্রথম স্ত্রী পদ্মা রীনা বাউরীর শরীরে কেরোসিন তেল ঢেলে আগুন জ্বালিয়ে বাড়ির দরজা বন্ধ করে দেয়। পরে স্থানীয়রা গুরুতর জখম অবস্থায় পদ্মাকে উদ্ধার করে বাঁকুড়া সম্মিলনী মেডিক্যাল কলেজে নিয়ে গেলে চারদিন পর রীনা মারা যায়। মৃত্যুকালীন জবানবন্দী দেন রীনা। এরপরই রীনার পরিবারের লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে স্বামী হারু বাউরী ও প্রথম স্ত্রী পদ্মা বাউরীকে গ্রেফতার করে। তারপর থেকে মোট ১৮ জন সাক্ষী ও মৃতার মৃত্যু কালীন জবানবন্দীর ভিত্তিতে স্বামী হারু বাউরী ও প্রথম স্ত্রী পদ্মা বাউরীকে দোষী সাব্যস্ত করে আদালত। আজ দু’জনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ডের নির্দেশ দেয় আদালত।

LEAVE A REPLY