রাজনৈতিক মৃত্যু ঘটল, অর্জুন সিংয়ের তৃণমূলে ফেরা প্রসঙ্গে মন্তব্য সৌমিত্রর

0
158

দুর্গাপুর, ২২ মেঃ– ‘ ২০০১ সাল থেকে কাউন্সিলার, বিধায়ক হয়েছেন। তবুও সমস্যার সমাধান করতে পারেননি। গত ১৫ দিনে মোদিজীর নেতৃত্বে পাটশিল্পের সমস্যার সমাধান হয়েছে। তারপরও তৃণমূলে যেতে হয়েছে অর্জুন সিংকে। কারন তৃণমূল ঘিরে ধরো নীতিতে তাঁর ব্যাবসা বন্ধ করে দিয়েছে। তাঁর তৃণমূলে যোগদান রাজনৈতিক মৃত্যু ঘটল।” রবিবার অর্জুন সিংয়ের তৃণমূলে ফেরা প্রসঙ্গে দুর্গাপুরে সাংবাদিকদের মুখোমুখি এমনই মন্তব্য করলেন বিজেপির রাজ্য সহ সভাপতি তথা সংসাদ সৌমিত্র খাঁ। প্রসঙ্গত,  পাটশিল্পের সমস্যা নিয়ে সরব হয়েছিলেন ব্যারাকপুরের সাংসদ অর্জুন সিং। এবং বঙ্গ বিজেপি ও কেন্দ্রের বিরুদ্ধে কার্যত বিদ্রোহ ঘোষনা করেছিলেন। তারপর থেকে অর্জু৷ সিংয়ের তৃণমূলে ফেরা নিয়ে জল্পনা সৃষ্টি হয়। রবিবার অবশেষ সেই জল্পনা বাস্তবায়িত হয়। তৃণমূলের যুবরাজ অভিষেক ব্যানার্জীর হাত ধরে পুনরায় ঘরে ফেরন অর্জুন সিং। তার এই তৃণমূলে যোগদান প্রসঙ্গে রাজনৈতিক মহল বিস্তর শোরগোল পড়েছে। রবিবার অর্জুন সিংয়ের তৃণমূলে ফেরা প্রসঙ্গে দুর্গাপুরে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বিজেপির রাজ্য সহ সভাপতি তথা সংসাদ সৌমিত্র খাঁ বলেন,”  তৃণমূলের জামানায় ব্যাবসা এবং রাজনীতি করতে হলে তৃণমূল করতেই হবে। তৃণমূল যেভাবে বিভিন্ন কেলেঙ্কারি ও দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়েছে, তাতে বলির খুঁটোতে মাথা রাখলেন অর্জুন সিং।” তিনি আরও বলেন,”২০০১ সাল থেকে কাউন্সিলার, বিধায়ক হয়েছেন। তবুও সমস্যার সমাধান করতে পারেননি। গত ১৫ দিনে মোদিজী ও অমিত শাহজির নেতৃত্বে পাটশিল্পের সমস্যার সমাধান হয়েছে। তারপরও তৃণমূলে যেতে হয়েছে অর্জুন সিংকে। কারন তৃণমূল ঘিরে ধরো নীতিতে তাঁর ব্যাবসা বন্ধ করে দিয়েছে। তাঁর তৃণমূলে যোগদান রাজনৈতিক মৃত্যু ঘটল। অর্জুন সিং রাজনৈতিক মৃত্যু দিয়ে নিজের ভাইকে ব্যাবসার জায়গা করে দিল।” তিনি আরও বলেন,” বিজেপির লড়াই জারি থাকবে।” 

LEAVE A REPLY