ভাইরাল ভিডিও প্রসঙ্গে শুভেন্দু বললেন,ভোটের দিন সন্ধ্যে ছ’টা পর্যন্ত নরেন চক্রবর্তীকে জেলে ঢুকিয়ে রাখা উচিত ছিল

0
79

নিজস্ব সংবাদদাতা,লাউদোহাঃ  বুধবার বিকেলে লাউদোহা ব্লকের ঝাঁঝড়া কলোনি কমিউনিটি হলে আসানসোল লোকসভার উপনির্বাচন নিয়ে বিজেপির একটি কর্মীসভা হয়। সেই কর্মীসভায় যোগ দেন বিজেপি বিধায়ক তথা বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন জীতেন্দ্র তেওয়ারী, দুর্গাপুরের বিধায়ক লক্ষণ ঘড়ুই সহ অন্যরা। সভাস্থলে সাংবাদিকদের প্রবেশ অধিকার ছিল না। সভা শেষে শুভেন্দু মুখোমুখি হন সাংবাদিকদের। তৃণমূল বিধায়ক নরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তীর ভাইরাল হওয়া ভিডিও ও তার পরিপ্রেক্ষিতে কমিশনের পদক্ষেপ নেওয়া প্রসঙ্গে শুভেন্দু বাবু বলেন, কমিশন যে পদক্ষেপ নিয়েছে তাকে আমরা স্বাগত জানাচ্ছি। তবে আমরা মনে করছি এটা গুরু পাপে লঘুদন্ড দেওয়া হয়েছে। ১২ এপ্রিল সন্ধ্যা ছ’টা পর্যন্ত নরেন চক্রবর্তীকে জেলে ঢুকিয়ে রাখা উচিত ছিল। কয়লা পাচার সম্পর্কে বলতে গিয়ে শুভেন্দুবাবু বিস্ফোরক অভিযোগ করে বলেছেন, আমার কাছে খবর আছে কয়লাপাচার কাণ্ডে অভিযুক্ত পুলিশ অফিসার অশোক মিশ্র তদন্তকারীদের কাছে পাচারের টাকার সুবিধাভোগীদের নাম বলেছেন। মন্ত্রী মলয় ঘটক, তৃণমূল নেতা ভি,শিবদাসন দাশু,জামুড়িয়ার তৃণমূল বিধায়ক হরেরাম সিংহ এরাও পাচারের টাকার সুবিধাভোগী। এদের সবার শাস্তি হওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেন শুভেন্দুবাবু। সভা শেষে গাড়িতে ওঠার সময় শুভেন্দুবাবু তৃণমূল কর্মীদের বিক্ষোভের মুখে পড়েন। তৃণমূল কর্মীরা শুভেন্দু অধিকারী গো ব্যাক স্লোগান দিতে থাকে। বিজেপি কর্মীরাও জয় শ্রীরাম, শুভেন্দু অধিকারী জিন্দাবাদ স্লোগান দিতে শুরু করে। যা নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা তৈরি হয়। দ্রুত পুলিশ ও কেন্দ্রীয় বাহিনীর হস্তক্ষেপে নির্বিঘ্নে সভাস্থল ছাড়েন শুভেন্দুবাবু। হাটিয়ে দেওয়া হয় তৃণমূল কর্মীদেরও। তবে শাসক দলের বিধায়কদের নিয়ে শুভেন্দুবাবুর অভিযোগ ও তৃণমূল কর্মীদের বিক্ষোভ প্রসঙ্গে কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি শাসক দলের পক্ষ থেকে।

LEAVE A REPLY