“ইডি সিবিআই যেভাবে তদন্তে এগোচ্ছে, অনেক নেতা এবারে দুর্গাপুজো দেখতে যেতে পারবেন না, জেলে থাকতে হবে” – দিলীপ

0
27

সাথী প্রামানিক, পুরুলিয়া, ১০ সেপ্টেম্বর: “ইডি সিবিআই যেভাবে তদন্তে এগোচ্ছে, অনেক নেতা এবারে দুর্গাপুজো দেখতে যেতে পারবেন না, জেলে থাকতে হবে।” পুরুলিয়া বিজেপির দলীয় কর্মসূচীতে যোগ দিয়ে ঠিক এই ভাষাতেই আক্রমণ করলেন কেন্দ্রীয় বিজেপি সহ সভাপতি দিলীপ ঘোষ। আগামী ১৩ সেপ্টেম্বর বিজেপির নবান্ন চলো কর্মসূচির আগে আজ পুরুলিয়া শহরে বিজেপির মিছিল ও পথসভা আয়োজিত হয়। স্টেশনের পাশ থেকে শুরু হয়। মেইন রোড ধরে স্থানীয় হাটের মোড়ে শেষ হয়। সেখানেই পথ সভা অনুষ্ঠিত হয়।  এই কর্মসূচীতে যোগ দেন কেন্দ্রীয় বিজেপি সহ সভাপতি দিলীপ ঘোষ ও বিজেপি নেত্রী লকেট চ্যাটার্জী, ছাড়াও জেলা বিজেপি সভাপতি বিবেক রাঙ্গা, পুরুলিয়ার বিজেপি সাংসদ জ্যোতির্ময় সিং মাহাতো, সহ বিজেপির অন্যান্য নেতাকর্মী সমর্থকরা । পথসভায় বক্তব্য রাখেন দিলীপ ঘোষ, লকেট চ্যাটার্জী, বিদ্যাসাগর চক্রবর্তী প্রমূখ নেতৃত্ব । কার্যত একের পর এক সকলেই  রাজ্য সরকারের এবং শাসক দলের নেতাদের দুর্নীতির প্রসঙ্গে তুলোধোনা করেন। পথসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে দিলীপ ঘোষ হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, “ইডি সিবিআই যেভাবে তদন্তে এগোচ্ছে অনেক নেতা দুর্গাপুজো দেখতে যেতে পারবেন না। গাড়ি করে বউ বাচ্চা নিয়ে প্যান্ডেলে ঘুরতে পারবেন না। জেলে থাকতে হবে । বউ বাচ্চাকে দেখা করতে জেলে যেতে হবে । পুজোর মার্কেটিং করতে পারবেন না, জেলের মধ্যে দুর্গাপুজো করতে হবে ।” এছাড়াও দিলীপ ঘোষ বলেন, “গরীব মানুষদের সম্পত্তি লুঠ হয়েছে, কেন্দ্রীয় সরকারের প্রকল্পের টাকা লুঠ হয়েছে, চাকরি লুঠ হয়েছে। সেই টাকায় ফুটানি হচ্ছে।” একইভাবে লকেট চ্যাটার্জী শাসক দলের নেতাদের কটাক্ষ করেন । প্রথমেই অনুব্রত মণ্ডলকে তুলোধোনা করে লকেট বলেন, “এবার কেষ্ট বেরোবে না । জেলেই থাকবে । এত। সম্পত্তি এলো কোথা থেকে ? কোথায় চাকরি করে ? মানুষ সব বুঝতে পারছে । এবার পুরুলিয়াতে এখনও হাত দেয়নি ।” এদিন পুরুলিয়ার শাসক দলের নেতাদের নাম ধরে ধরে লকেট বলেন, সিবিআই ইডি তদন্ত করে আসল সত্য বের করে আনবে ।”দলীয় কর্মসূচিতে যোগ দেওয়ার আগে পুরুলিয়ায় আজ সকালে প্রাতঃভ্রমণ করেন দিলীপ ঘোষ। পরে পুরুলিয়া শহরের ট্যাক্সি স্ট্যান্ড-এ চা চক্রে যোগদান করেন তিনি। সেখানে তাঁর সঙ্গে বঙ্গ বিজেপির সাধারণ সম্পাদক তথা সাংসদ জ্যোতির্ময় সিং মাহাতো, বিধায়ক নরহরি মাহাতো, সুদীপ মুখার্জি, দলের জেলা সভাপতি বিবেক রাঙা সহ অন্যান্য নেতৃত্ব ছিলেন। সেখানে সংবাদ মাধ্যমের এক প্রশ্নের উত্তরে গতকাল গভীর রাতে হাওড়ায় আনিস খানের তুত ভাইয়ের উপর হওয়া হামলার ঘটনায় ফের রাজ্যের আইন শৃংখলা নিয়ে কঠোর সমালোচনা করলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি দিলীপ ঘোষ।  তিনি বলেন, পশ্চিমবঙ্গে আইন-শৃঙ্খলা বলে কিছু নেই সাধারণ মানুষের সুরক্ষা নেই। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পুলিশ মন্ত্রী তাঁর না প্রশাসন হাতে আছে না পুলিশ।  রাজ্য সরকারের সিআইডি তদন্ত প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “সিআইডিকে দিয়ে বাঁচানোর চেষ্টা চলছে।  সিবিআই ইডি তদন্ত করছে এটা থেকেই বাঁচার চেষ্টা চলছে।”  পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের প্রসঙ্গ তুলে তিনি বলেন, “তাঁর বাড়ির কাজের লোকও কোম্পানির মালিক। মঙ্গলকোটের ঘটনায় অনুব্রত মণ্ডলের ক্লিনচিট পাওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন বর্তমান রাজ্য সরকার বিরোধীদের আটকানোর জন্য যেমন মিথ্যা কেস দিচ্ছেন। একইভাবে বিরোধীদের মিথ্যা কেস দেওয়া হয়েছিল। তাতেই ছাড়া পেয়েছেন অনুব্রত।

LEAVE A REPLY