জামুরিয়ায় বিজেপির দলীয় কার্যালয়ে ভাঙচুরের অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে

0
79

নিজস্ব প্রতিনিধি,জামুড়িয়াঃ আসানসোল লোকসভার জামুড়িয়ার সাতগ্রামে ভোট-পরবর্তী হিংসার অভিযোগে উত্তপ্ত হলো নাগেশ্বর কলিয়ারি এলাকা। এদিন নাগেশ্বর কোলিয়ারির মধ্যে থাকা পরিত্যক্ত জিএম বাংলোর মধ্যে গড়ে ওঠা বিজেপির দলীয় কার্যালয়টিকে আজ সকাল থেকেই তৃণমূলের বেশ কিছু কর্মী সমর্থক নিজেদের দলীয় পতাকা ব্যানার পোস্টার দিয়ে বিজেপির ব্যানার-পোস্টার সরিয়ে দিতে শুরু করলেই উত্তেজনাময় পরিস্থিতি সৃষ্টি হয় এলাকায়। এই ঘটনার খবর পাওয়ার পরপরই জামুরিয়া থানার বিশাল পুলিশবাহিনী ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছে উত্তেজনাময় পরিস্থিতি সামাল দেয়। এই ঘটনার খবর বিজেপি নেত্রী অগ্নিমিত্রা পাল পাওয়ার পরপরই তিনি ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছে পুলিশ প্রশাসনের আধিকারিকদের কেন এ ধরনের ঘটনা বারবার তৃণমূল কর্মীরা ঘটাচ্ছেন সে বিষয়ে জানতে চেয়ে পুলিশ-প্রশাসন কেন এ সমস্ত কিছুকে রুখে দেওয়ার ব্যবস্থা করলেন না তার জন্য তিনি জবাবদিহি করতে শুরু করেন, এদিন পুলিশ আধিকারিকরা বিধায়িকা কে বার বার বোঝানোর চেষ্টা করেন যে তারা উত্তেজনাময় পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার জন্য বিশেষভাবে তৎপর হয়েছেন, উল্লেখ্য গত কয়েক বছর আগেই ইসিএলের সাতগ্রাম এরিয়ার নাগেশ্বর কোলিয়ারি মধ্যে একটি পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে থাকা জিএম গেস্টহাউসে  বিজেপির দলীয় কার্যালয় হিসেবে গড়ে তোলেন এলাকার বেশ কিছু বিজেপি নেতৃত্ব, দীর্ঘদিন ধরে পরিতক্ত পড়ে থাকা সেই গেস্ট হাউসটিকে বর্তমানে দলীয় কার্যালয় হিসেবে বিজেপি ব্যবহার করার পর রবিবার সকাল নাগাদ হঠাৎ এই সেই দলীয় কার্যালয়ে তৃণমূলের ব্যানার পোস্টার লাগিয়ে বিজেপির ব্যানার-পোস্টার ফেলে সরিয়ে দেয় বলেই অভিযোগ তুলে এদিন উত্তপ্ত হয়ে ওঠে এলাকা, বিজেপি নেত্রী বিধায়িকা অগ্নিমিত্রা পাল এর দাবি রাজ্যজুড়ে ভোট-পরবর্তী হিংসা জারি রয়েছে এখানেও নির্বাচনে ব্যাপক ভোটে জয়লাভ করার পরও তৃণমূলের নেতাকর্মীরা ভোট পরবর্তী হিংসা জারি রেখেছে, যা কখনোই কাম্য নয় তারা কোন রাজনৈতিক দলের পার্টি অফিস কখনো দখল করার কথা বলেন না কোনো রাজনৈতিক দলের পাটিঅফিস তারা দখল করেন নি তাই এধরনের ঘটনা যাতে আগামীতে না হয় তার জন্য তিনি তৃণমূল নেতৃত্ব কে বিষয় গুলি দেখার জন্য নিজের বক্তব্যে আবেদন জানান।অপরদিকে ওই ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর সুব্রত অধিকারী ওরফে রানা জানান এটি একটি ইসিএলের আবাসন।এইখানে বিভিন্ন সমাজ বিরোধী কার্যকলাপ হয়। বহিরাগত  এই জায়গাটাকে মদ জুয়ার ঠেকে পরিণত করেছে।বহুবার ইসিএলের দ্বারস্থ হয়েছেন তারা। কোন লাভ হয়নি।বিজেপির আনা অভিযোগ ভিত্তিহীন। ভোটে বিপুল ভাবে হেরে গিয়ে এরপর সহানুভূতি পাওয়ার জন্য তৃণমূলের উপর মিথ্যা অভিযোগ করছেন বিজেপি নেত্রী অগ্নিমিত্রা পাল।

LEAVE A REPLY