মানবিকতার নজির দুর্গাপুরে,অন্যের গর্ভজাত সন্তানকে মাতৃদুগ্ধ পান করিয়ে সুস্থ রেখেছেন দুই মা প্রতিমা ও প্রিয়া

0
62

বিশেষ প্রতিনিধি,দুর্গাপুরঃ গর্ভধারন না করেও অন্যের গর্ভজাত সন্তানকে মাতৃদুগ্ধ পান করিয়ে সুস্থ রেখেছেন প্রতিমা ও প্রিয়া। নিজেদের সন্তানদের পাশাপাশি অন্য এক মহিলার অসুস্থ বাচ্চাকে গত দু’দিন ধরে মাতৃদুগ্ধ পান করাচ্ছেন এই দুই মহিলা। গত কয়েকদিন আগে বেসরকারি মিশন হাসপাতালে একটি প্রি ম্যাচিওর বেবির জন্ম দেন কুলটির বাসিন্দা জ্যোতি শর্মা। নির্দিষ্ট সময়ের আগে জন্ম হওয়ায় বাচ্চাটির মা স্তন্যপান করাতে ব্যর্থ হন। এই পরিস্থিতিতে চিকিৎসকরা নিদান দেন সদ্যোজাত বাচ্চাটিকে সুস্থ করতে মাতৃদুধ পান করানো অত্যন্ত জরুরী। হাসপাতালে কোনও ব্যবস্থা না থাকায় বিপাকে পড়েন জ্যোতি ও তাঁর স্বামী জয়ন্ত। হন্য হয়ে তাঁরা সদ্যোজাত সন্তানের মায়ের খোঁজ করতে থাকেন। যে তাদের অসুস্থ বাচ্চাকে মাতৃদুগ্ধ পান করাবেন। অনেক খোঁজাখুজি করেও সদ্যোজাত সন্তানের মায়ের সন্ধান পান নি তাঁরা। এমন সময় তাদের যোগাযোগ হয় দুর্গাপুর মহকুমা ভলেন্টারি ব্লাড ডোনার্স ফোরামের সঙ্গে। জ্যোতি ও জয়ন্তর সমস্যার কথা শোনার পর ফোরামের সদস্যরাও সদ্যোজাত সন্তানের মায়ের খোঁজ শুরু করেন। ফোরামের এক সদস্য রঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায় নিজের বাড়ির পাশে করঙ্গপাড়া সংলগ্ন বস্তিতে গিয়ে খোঁজ করতেই দুই সদ্যোজাত সন্তানের মায়ের খোঁজ পান। একজন ষষ্ঠীতলার বাসিন্দা প্রতিমা থান্ডার। আরএকজন প্রিয়া বাউড়ি। রঞ্জন বলেন ‘একটি অসুস্থ বাচ্চাকে মাতৃদুগ্ধ পান করানোর কথা  বলতেই প্রতিমা ও প্রিয়া তাঁরা আপত্তি করেন নি। তাদের পরিবারের লোকেরাও আপত্তি করেন নি।’ গত দু’দিন ধরে প্রতিমা ও প্রিয়া পালা করে মিশন হাসপাতালে গিয়ে ওই প্রি ম্যাচিওর বাচ্চাটিকে মাতৃদুগ্ধ পান করাচ্ছেন। দুই মহিলার ভূমিকা প্রসঙ্গে জোতি ও জয়ন্ত বলেন ‘প্রতিমা ও প্রিয়া দু’জনের কাছে আমরা কৃতজ্ঞ। তাদের অবদান কখনই ভোলার নয়।’   ব্লাড ডোনার ফোরামের সেক্রেটারি কবি ঘোষ বলেন, ‘দুই সদ্যোজাত সন্তানের মা মাতৃদুগ্ধ পান করাতে রাজি হয়েছে শুনে জ্যোতি ও তাঁর স্বামী যেন আকাশের চাঁদ হাতে পেয়ে যান। প্রতিমা ও প্রিয়া মাতৃদুগ্ধ পান করানোর পর বাচ্চাটি এখন সুস্থ আছে বলে জানিয়েছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। দুই মহিলার পরিবারে আর্থিক অনটন আছে। কিন্তু মাতৃদুগ্ধ পান করানোর জন্য তাঁরা কোনও টাকা পয়সা দাবি করে নি। দুই মহিলাকে ফোরামের তরফে আমরা কুর্ণিশ জানাই।’ আর দুই মহিলা প্রতিমা ও প্রিয়া বলেন ‘একটা সদ্যোজাত অসুস্থ বাচ্চাকে মাতৃদুগ্ধ পান করিয়ে সুস্থ করে তোলার মধ্যে যে কতটা তৃপ্তি তা বলে বোঝানো যাবে না।’

LEAVE A REPLY