ভাঙা গোয়ালঘরের দুটো ইট নেওয়ায় বুদবুদে এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে খুনের অভিযোগ,ধৃত ৬

0
59

জয় লাহা,দুর্গাপুরঃ ভাঙা গোয়ালঘরের দুটো ইট নেওয়ায় এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে খুন করা হল। ঘটনায় অভিযুক্ত ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রবিবার রাত্রে ঘটনাটি ঘটেছে বুদবুদের মসজিদতলা এলাকা। ঘটনাকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়। পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, মৃতের নাম শেখ আসগর(৫৫), বুদবুদ মসজিদতলার বাসিন্দা। পেশায় মাংস বিক্রেতা। পরিবার সুত্রে জানা গেছে, বাড়ীর সামনে একটি পুরোনো গোয়ালঘরের জমি নিয়ে বিবাদ চলছিল পাড়া সম্পর্কিত দাদা সৌকত আলির সঙ্গে। বিষয়টি নিয়ে দুই পরিবারের বেশ কয়েকবার ঝামেলা হয়। সম্প্রতি মিমাংসার জন্য পঞ্চায়েতে বসে আলোচনার জন্য তলব করে। তারমধ্যেই ঘটে অঘটন। রবিবার রাত্রে শেখ আসগর তার মাংসর দোকানের সামনে জল জমে যাওয়ায় ভাঙা গোয়ালঘরের পড়ে থাকা দুটো ইট নিয়েছিল। আসগরের ভাই শেরাফত আলি অভিযোগে বলেন,”  গোয়ালঘরের ভাঙা ইট দুটো নিয়েছিল।  তাতেই তার ওপর আক্রমন করে সৌকত আলি, সেখ নাসিরুদ্দীন, মজিদুল ইসলাম, শবনম বিবি, লালি বেগম, আরশাদ আলি প্রমুখ। দাদাকে এলোপাথাড়ি নির্মমভাবে মারধর করতে দেখে ছুটে যায় বাঁচাতে। বাধা দিতে যাওয়ায় আমাকেও মারধর করে। ততক্ষনে দাদা আশঙ্কাজনক। বৌদি জল নিয়ে আসে। কোনভাবে মুখে জল দেওয়া হয় এবং দ্রুত পুরষা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসকরা মৃত বলে জানিয়ে দেয়। ” পরিবারের পক্ষ থেকে মৃত সেখ আসগরের ছেলে কেহিনুর ইসলাম বুদবুদ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।  সেখ আসগরের ভাই শেরাফত আলি জানান,” অতীতে ওই জমিকে কেন্দ্র করে দাদার ওপর বহুবার অন্যায়ভাবে হামলা হয়েছে। মারধর হয়েছে। যারা দাদাকে এভাবে খুন করল তাদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবী জানাচ্ছি।”  এদিন খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় বুদবুদ থানার পুলিশ। ঘটনায় অভিযুক্ত ৬ জনকে গ্রেফতার করে। সোমবার ধৃতদের দুর্গাপুর মহকুমা আদালতে তোলা হলে বিচারক সৌকত আলি, সেখ নাসিরুদ্দীনকে ৪ দিনের পুলিশ হেপাজতের নির্দেশ দেন। বাকি  মজিদুল ইসলাম, আরশাদ আলি, শবনম বিবি, ললি বেগমকে ১৪ দিনের জেল হেপাজতের নির্দেশ দেন। পুলিশ জানিয়েছে,” জমি বিবাদকে কেন্দ্র করে দ্বন্দ্ব। ঘটনার তদন্ত চলছে।” 

LEAVE A REPLY