তৃণমূলকে ‘রয়েল বেঙ্গল টাইগার’ বলে পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগেই কর্মীদের মনোবল চাঙ্গা করলেন তৃণমূল নেত্রী

0
137

নিজস্ব প্রতিনিধি,বাঁকুড়াঃ আজ বাঁকুড়ায় সফরের দ্বিতীয় দিনে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পঞ্চায়েত কর্মী সম্মেলনে অংশ নেন। বাঁকুড়ার সতীঘাট এর বুথ কমিটির সম্মেলন থেকেই পঞ্চায়েত নির্বাচনে কর্মীদের উদ্দেশ্যে বার্তা দিয়েছেন তৃণমূল সুপ্রিমো। আজ বক্তৃতার প্রথমেই প্রখ্যাত সঙ্গীতশিল্পী কেকের অকাল প্রয়াণে শোক জ্ঞাপন করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পাশাপাশি কেকের স্ত্রী মেয়ে পরিবার-পরিজনকে সমবেদনা জানান তৃণমূল নেত্রী। এদিন কর্মী সম্মেলন এর নির্দিষ্ট সময়ে বেলা বারোটার অনেক আগেই মঞ্চে এসে উপস্থিত হন তৃণমূল নেত্রী। এসেই তিনি  তৃণমূল কর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন আজ ওয়েদার খুব খারাপ আছে। কালকেও আপনারা দেখেছেন খুব ঝড়-বৃষ্টি বজ্রপাত বিদ্যুৎ হয়েছে। আমাকে এগারটা পনেরো কুড়ির মধ্যে হেলিপ্যাডে হেলিকপ্টার ধরতে হবে। প্রখ্যাত সঙ্গীতশিল্পী ভাই কে কে সম্মান জানাতে যাব। আমি চেষ্টা করছি তাকে শেষ দেখা দেখার। ওয়েদার যদি ভাল থাকে অন্ডাল থেকে ফ্লাইট ধরে দমদম এয়ারপোর্টে যাবো। পুলিশকে দিয়ে গান স্যালুট করাবো। তাই মিটিঙে কাটছাঁট করতে হয়েছে বলেই কর্মীদের কাছে একপ্রকার ক্ষমা চেয়ে নেন তৃণমূল সুপ্রিমো। পঞ্চায়েত নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীরা কিভাবে ঝাপাবেন সেই উদ্দেশ্যেই ছিল এই কর্মী সম্মেলনে। তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, মন খারাপ হয়েছিল বাঁকুড়ায় আমরা জিতিনি। কর্মীদের ভুলভ্রান্তি ছিল। বিজেপির অপপ্রচারও ছিল। তাই এই রেজাল্ট হয়েছে। কিন্তু বিজেপিকে আর দেখা যাচ্ছে না। সদ্য বিধানসভা নির্বাচনে বাঁকুড়া বিধানসভায় হেরে যাওয়া তৃণমূল রাজ্য সম্পাদক সায়ন্তিকা ব্যানার্জিকে দেখিয়ে বলেন, সায়ন্তিকা খুব ভালো মেয়ে। হেরে যাওয়ার পরেও বাঁকুড়া আসে। এমন কর্মীরই আমাদের দরকার। তারপরে পরেই তৃণমূল কর্মীদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, কি লড়াই করবেন তো। ঘর থেকে বেরোবেন তো।এক বছর তো কাজকর্ম করেননি মনে হয়, হেরে গিয়ে দুঃখ পেয়েছিলেন। আজ দিদি এসে বলে গেল, দিদি যদি হেরে গিয়ে চলে আসতে পারে তাহলে আপনারা কেনো ঘর থেকে বের হবেন না। দরজায় দরজায় মানুষের য়ান। মানুষের হয়ে কাজ করুন। দুয়ারে সরকারের কাজ করুন। পাড়ায়-পাড়ায় সমাধানে কাজ করুন। মানুষ কোথায় কি পাচ্ছে না সেটা দেখুন। চাষীদের পাশে থাকুন। গরিবদের পাশে থাকুন। আদিবাসীদের পাশে থাকুন। আমরা আছি আমরা থাকবো আমরা লড়বো আমরা গড়বো আমরা জিতব। এই লড়াইয়ের নামই তৃনমূল কংগ্রেস। তৃণমূল কংগ্রেস মাথা নিচু করে না। তৃণমূল কংগ্রেস রয়েল বেঙ্গল টাইগার এর মত লক্ষ্য করে। এই বার্তা দিয়ে আগামী পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগেই তৃণমূল কর্মীদের মনোবল চাঙ্গা করেন তৃণমূল নেত্রী। এর পাশাপাশি তৃণমূল নেত্রীর বিজেপি আক্রমণ করে বলেন, একটা পার্টি জুটেছে। বিজেপি অপদার্থ পার্টি ভারতবর্ষের। মনে হয় কবে বিদায় নেবে। শকুনের মতো বসে থাকে। কবে মারা যাবে আর সেটা খেতে আসবে। একটা ভালো কাজের চিন্তা নেই। ১০০ দিনের কাজের কর্মীদের পনেরো দিনের মধ্যে টাকা দেওয়া উচিত। নরেন্দ্র মোদি সরকার পাঁচ মাস ধরে টাকা দিচ্ছে না। আমাদের প্রাপ্য টাকা আটকে দিয়েছে। আমি তৃণমূল কর্মীদের বলব ৫ এবং ৬ তারিখে বুথে বুথে ব্লকে ব্লকে ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে মিছিল করবেন। বলবেন বিজেপি একশো দিনের টাকা দাও, নইলে তোমরা বিদায় নাও। নরেন্দ্র মোদি একশো দিনের টাকা দাও নইলে তোমরা বিদায় নাও। তিনি আরো দাবি করেন কালকেই ৯০ লক্ষ রেলের শূন্য পদ বাতিল করে দিয়েছে।তারমানে আস্তে আস্তে দোকানটাকে গুটিয়ে ফেলো।রেল বিক্রি করে দিচ্ছে। কয়লা বিক্রি করে দিচ্ছে। সেল বিক্রি করে দিচ্ছে। ব্যাংক বিক্রি করে দিচ্ছে। ইন্সুরেন্স বিক্রি করে দিচ্ছে। গম বন্ধ করে দিয়েছে। দেশে গম পাওয়া যাবেনা। গম দিচ্ছে না, আর ইলেকশনের আগে বলে উজালা গ্যাস দেবো গরীব লোককে। মা-বোনেরাও ভাবলো বিনা পয়সায় একটা উজালা গ্যাস পেলাম কি সুন্দর। ভালো-মন্দ রান্না করে খাব। আর আজকে দেখছেন কোথায় উজালা ওটা হাওয়ালা ওটা হাওয়ায় ভেসে চলে গেছে। ওটা ধোকালা ধোকায় ভেসে চলে গেছে। ৮০০টাকা দিয়ে আপনাকে সিলিন্ডার কিনতে হবে। ৮০০টাকা দিয়ে সিলিন্ডার কেনা থেকে স্টোবে রান্না করা ভালো। স্টোবে রান্না করবেন কেরোসিনের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। এরপর তো মনে হচ্ছে কাটে রান্না করতে হবে।  আবার পুরনো দিনে ফিরে আসতে হবে। এই বিজেপি সরকার কত লোকের চাকরি চলে গেছে। ৪০% বেকারি বেড়েছে দেশে। নোট বন্দি যখন করলো, সবার লক্ষীর ভান্ডার কেড়ে নিল। তখনি আমি বলেছিলাম নোট বন্দি বড় কেলেঙ্কারী হবে। এটা মানুষের কাজে লাগবে না। আজকে প্রমান হয়ে গেছে রিজার্ভ ব্যাংক বলছে নোট বন্দি করে ১০২ পার্সেন্ট ভেজাল হয়েছে ৫০০ টাকার নোট।২৪ এর লোকসভা নির্বাচনে প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দাবি আজ তুমি বলছো কয়লার টাকা খেয়েছে ওকে সিবিআই নোটিশ দাও। ও গরুর টাকা খেয়েছে ওকে সিবিআই নোটিশ দাও।ও গরুর মাংস খেয়েছে ওকে ই ডি নোটিশ দাও। আর নোট বন্দির টাকা অরিজিনাল টাকা গুলো গেলো কোথায়। কেনো আজকে ভেজাল নটে ভর্তি হয়ে গেল। নরেন্দ্র মোদি জবাব তোমায় দিতে হবে। অমিত শাহ জবাব তোমাই দিতে হবে। জবাব তোমায় দিতে হবে, নইলে গদি ছাড়তে হবে। মনে রাখবেন ২০২৪ এ তোমাদের নো এন্ট্রি। তোমরা ক্ষমতায় আর আসবে না, যতই চেষ্টা করো। বিজেপির বিরুদ্ধে তোপ দাগেন তৃণমূল সুপ্রিমো।

LEAVE A REPLY