পুজোর মুখে বাঁকুড়ায় হাজির ৪৫টি হাতি,ক্ষয়ক্ষতি ও প্রাণহানি এড়াতে তৎপর বন দফতর

0
20

নিজস্ব প্রতিনিধি,বাঁকুড়াঃ পুজোর মুখেই দফায় দফায় বাঁকুড়ায় হাজির হল মোট ৪৫টি হাতি। খাবারের খোঁজে হাতিগুলি দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে আপাতত থিতু হয়েছে বাঁকুড়ার বড়জোড়া রেঞ্জের পাবয়ার জঙ্গলে। পুজোর মুখে একসাথে এতগুলি হাতি বাঁকুড়ায় চলে আসায় স্বাভাবিক ভাবেই উদ্বিগ্ন বন দফতর। তবে হাতির হানায় ফসল , সম্পত্তি ও প্রাণহানির ঘটনা এড়াতে বিশেষ তৎপরতা নিয়েছে বন দফতর। বাঁকুড়ায় হাতি আসার ঘটনা নতুন নয়। মাঝের দু এক বছর বাদ দিলে বিগত শতকের নব্বইয়ের দশক থেকে প্রতি বছর খাবারের খোঁজে দলমার দাঁতাল দল হানা দেয় বাঁকুড়ার জঙ্গলে। পশ্চিম মেদিনীপুরের সীমানা পেরিয়ে হাতির দল বিষ্ণুপুর, সোনামুখী ও বেলিয়াতোড় হয়ে সোজা এসে হাজির হয় বড়জোড়ার পাবয়া,ডাকাইসিনি,কালপাইনি,বাঁধকানার জঙ্গলে। চলতি বছরও সেই নিয়মের অন্যথা হল না। পুজোর মুখেই দফায় দফায় মোট ৪৫টি হাতি এসে হাজির হল বাঁকুড়ার বড়জোড়া রেঞ্জের পাবয়ার জঙ্গলে। একটি জঙ্গলে এত সংখ্যক হাতি এসে হাজির হওয়ায় রীতিমত ঘুম ছুটেছে এলাকার মানুষের। উদ্বেগ ছড়িয়েছে বন দফতরের অন্দরেও। কিন্তু একদিকে হাতির দলটিতে বেশ কিছু শাবক থাকায় ও দীর্ঘপথ পাড়ি দিয়ে হাতিগুলি সদ্য বড়জোড়া রেঞ্জে এসে পৌঁছানোয় দলটিকে ফের ফিরিয়ে দেওয়ার ব্যাপারে সাবধানী পদক্ষেপ করতে হচ্ছে বন দফতরকে। আপাতত এলাকার মানুষের ফসল, সম্পত্তি  ও জীবনহানি রুখতে বন দফতরের ক্ষেত্রে বড় ভরসা হয়ে উঠেছে বিশেষ ধরনের বিদ্যুৎবাহী তারের বেড়া ও এলিফ্যান্ট প্রুফ ট্রেঞ্চ। বন দফতরের দাবী বিদ্যুৎবাহী তারের বেড়া ও এলিফ্যান্ট প্রুফ ট্রেঞ্চ এর সাহায্যে হাতির দলটির গতিবিধি জঙ্গলের মধ্যেই সীমাবদ্ধ রাখার ক্ষেত্রে বড় ভূমিকা নিচ্ছে। এর পাশাপাশি গজমিত্র প্রকল্পে হাতিগুলির উপর কড়া নজরদারি চালানো হচ্ছে বলে জানিয়েছে বাঁকুড়া উত্তর বন বিভাগ।

LEAVE A REPLY