সব্জির দাম না পেয়ে হতাশ চাষীদের অনেকেই গাছ নষ্ট করে দিচ্ছেন,অনেকে গোরুকে সব্জি খাওয়াচ্ছেন

0
175

বিশেষ প্রতিনিধি,দুর্গাপুরঃ দিন কয়েক আগে শিলাবৃষ্টির জন্য ফসলের ক্ষতি হয়েছে। তারমধ্যে বাজারে সব্জির দাম নেই। ফলে দামোদর নদের ধারে মানাচরের চাষীরা বিপাকে পড়েছেন। ঝিঙে, ভেন্ডি, বরবটি, এইসব সব্জির দাম না পেয়ে অনেকে গাছ নষ্ট করে দিচ্ছেন। আবার অনেকে গোরুকে সব্জি খাওয়াচ্ছেন। দামোদর নদের ধারে মানাচরের বাসিন্দাদের একটা বড় অংশ কৃষিকাজের সঙ্গে যুক্ত। সারাবছর ধরে মরসুমি সব্জি চাষ করেন। বর্তমানে এই চাষীরা ঝিঙে, ভেন্ডি, বরবটি সহ নানা সব্জি চাষ করেছিলেন। কিন্তু এখন বাজারে বিক্রী করতে গিয়ে বিপাকে পড়েছেন চাষীরা। বাজারে দাম নেই। দুর্গাপুরের অন্যতম বৃহৎ সব্জির পাইকারি বাজার স্টেশন সংলগ্ন সেন মার্কেট। মানা চরের বাসিন্দারা এই মার্কেটে উৎপাদিত সব্জি বিক্রী করেন। কিন্তু এই পাইকারি বাজারে দাম পাচ্ছেন না চাষীরা। দামোদর নদ সংলগ্ন ছোট মানা চরের বাসিন্দা সুখময় গড়াই বলেন, ‘পাইকারি বাজারে সব্জির দাম পাচ্ছি না। ঝিঙে দশ টাকা পাল্লা। অর্থাৎ দু’টাকা কেজি। ভেন্ডি কুড়ি টাকা পাল্লা। কখনও আরও কমে যাচ্ছে। তিন – চার টাকা কেজি। বরবটির দামও প্রায় এক। গাছ থেকে সব্জি তুলে বাজারে নিয়ে যাওয়ার খরচ উঠছে না। তাই গোরুকে খাওয়াচ্ছি।’ এই এলাকার বাসিন্দা ছিদাম সরকার দাম না পেয়ে ভেন্ডি গাছ থেকে তোলার আগ্রহ দেখান নি। গাছ নষ্ট করে দিয়েছেন।’ দামোদর নদের ধারে অবস্থিত সোনাইচন্ডিপুর গ্রামের চাষীদেরও একই অবস্থা। গ্রামের বাসিন্দা প্রভাস দাস, শুধাংশু বালারা বলেন ‘ভেন্ডি, বরবটি, ঝিঙে এই সব সব্জির দাম নেই বাজারে। গাছ থেকে তুলছি না। এই বছর প্রচুর ফলন হয়েছে। তাই বাজারে দাম নেই। বেশ কিছু সব্জি নষ্ট হয়েছে শিলা বৃষ্টিতে। আরএক চাষী বলেন ‘দু’দিন আগে পাইকারি বাজারে নেনুয়া নিয়ে গিয়েছিলাম। চার টাকা কেজি দাম। তারপর থেকে আর বাজারে নেনুয়া নিয়ে যায় নি।‘ বর্তমানে দুর্গাপুরের বিভিন্ন বাজারে ভেন্ডি, পটল, ঝিঙে, উচ্ছে, বরবটি এই সব সব্জি ২০ টাকা কেজি দরে বিক্রী হচ্ছে। বেলা হলে দাম কমে ১৫ – ১২ টাকায় বিক্রী হচ্ছে। সব্জির দাম এত কমে গেল কেন? এই প্রশ্নের জবাবে দুর্গাপুরে সেন মার্কেটের এক পাইকারি ব্যবসায়ী তথা পুরসভার ৪১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শিপুল সাহা বলেন, ‘গত বছর এই সব সব্জি চাষ করে চাষীরা অনেক টাকা রোজগার করেছেন। তাই এই বছর বেশি করে চাষ করেছেন। চাহিদার তুলনায় জোগান বেশি হওয়াতে দাম কমে গেছে। তবে আগামী কয়েকদিন পরে দাম উঠবে।’

LEAVE A REPLY