পুরুলিয়ার স্কুলে বহিরাগতদের আগ্নেয়াস্ত্র উঁচিয়ে শূন্যে গুলি,গ্রেফতার ৫

0
69

সাথী প্রামানিক,পুরুলিয়া, ৫ অগাষ্ট: স্কুলের মধ্যে হাতে পিস্তল নিয়ে বহিরাগত ছাত্রের মস্তানীকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে উঠল এলাকা। ঘটনাকে ঘিরে তুলকালাম পুরুলিয়ার আড়ষা থানা এলাকার কাঁটা শিক্ষাসত্র উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় চত্বর। বৃহস্পতিবার দুপুরে আন্ত শ্রেণি ফুটবল খেলা চলাকালীন কাঁটডি শিক্ষাসত্র উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে মাঠে ঝামেলা হয়। স্কুলেরই দুই দল ছাত্রের মধ্যে হাতাহাতি হয়। তখনই একজন ছাত্র আহত হয়।  এরপরই একজন বহিরাগত ছাত্র বিদ্যালয়ে বাউন্ডারির পাশে এসে ছাত্রদের সামনে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে ঘুরে বেড়াতে দেখা যায়। শুন্যে উঁচিয়ে গুলি ছুঁড়ে ভয় দেখায় বলে অভিযোগ। স্কুলের ভার প্রাপ্ত শিক্ষক সন্তোষ কুমার মাহাতো বলেন, “আমাকে কিছু ছাত্র ঘটনার কথা জানালে আমি তাদের থানায় অভিযোগ জানানোর পরামর্শ দিই। তা ছাড়া আমি থানার ওসিকে বিষয়টি নিয়ে বলি। পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করে। আগ্নেয়াস্ত্র রাখা ও অচেনা বহিরাগতকে গ্রেফতার করে। এছাড়া আমাদের ছাত্রকেও গ্রেফতার করে।” ঘটনার পর আজ সকাল থেকে নির্দোষ সহপাঠিদের মুক্ত ও স্কুলে নিরাপত্তার দাবিতে পুরুলিয়া-জামশেদপুর ৩২ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখায় পড়ুয়ারা। বেলা ১১ টা থেকে অবরোধ শুরু হয়। অবরোধের ফলে ব্যস্ততম ওই রাস্তার দুই পাশে প্রচুর যান বাহন আটকে থাকে। পুলিশের পদস্থ আধিকারিক সহ ঘটনাস্থলে  বিশাল পুলিশ বাহিনী পৌঁছে অবরোধকারী ছাত্রদের বোঝানোর চেষ্টা চালান আধিকারিকরা । ভারপ্রাপ্ত শিক্ষক ছাড়াও স্কুল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলেন তাঁরা। ঘটনাকে ঘিরে আতঙ্ক ছড়িয়েছে বিদ্যালয়ে।  অভিভাবক থেকে পড়ুয়াদের একাংশের অভিযোগ, স্কুলে নিয়ম শৃংখলা ঠিক নেই। নিরাপত্তা নেই । আতঙ্কে রয়েছেন সকলেই। পুলিশের আশ্বাস পেয়ে দুপুর আড়াইটে নাগাদ অবরোধ তুলে নেয় ছাত্ররা কাঁটাডি শিক্ষাসত্র উচ্চ মাধ্যমিক বিদ‍্যালয়ের ঘটনায় পাঁচ ছাত্রকে গ্রেফতার আড়ষা থানার পুলিশ। অভিযুক্ত দীপঙ্কর মাহাত, রাম মাহাত, ও কর্ণ মাহাত এই তিনজনকে পুরুলিয়া জেলা আদালতে তোলা হয়। ধৃতদের জেল হেফাজতের নির্দেশ দেন বিচারক। এদের পসকো আইনে গ্রেফতার করা হয়। অন‍্যদিকে, মৌসিন রাজা খান, ও মৈনুদ্দিন খানকে তোলা হয় পুরুলিয়া আনন্দ মঠ হোমে জুভেলাইন কোর্টে। তাদের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইন ও ঝামেলা পাকানোর অভিযোগ করা হয়েছে। বিচারক দুই কিশোরকে হুগলি কল‍্যাণ ভারতী হোমে পাঠানোর নির্দেশ দেন। স্কুল চত্বরে বহিরাগতদের প্রবেশ এবং অস্ত্র উঁচিয়ে গুলি ছোঁড়ার ঘটনার তদন্ত গুরুত্ব দিয়ে দেখছে পুলিশ। কীভাবে ওই কিশোরদের কাছে আগ্নেয়াস্ত্র এল তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে পুলিশ জানায়।

LEAVE A REPLY