বিয়ের পরেও প্রতিবেশী যুবকের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে শ্বশুর বাড়িতে অশান্তি,বাপের বাড়ি গিয়ে আত্মঘাতী বধূ

0
63

নিজস্ব প্রতিনিধি,বর্ধমানঃ প্রতিবেশী এক যুবকের সঙ্গে বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কের কারণে শ্বশুর বাড়িতে অশান্তি। যার জেরে বাবার বাড়িতে গিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মঘাতী হল এক গৃহবধূ। মৃতার নাম সীমা দাস (২৪)। বাড়ি পূর্ব বর্ধমানের ভাতারের বলগোনা গ্রামে। ঘটনাটি ঘটেছে ভাতারের ঢ়েরিয়া গ্রামে গৃহবধূর বাপের বাড়িতে। ভাতারের ঢ়েরিয়া গ্রামের বাসিন্দা পল্টু দাসের বড় মেয়ে সীমা দাসের বছর সাতেক আগে বলগোনা গ্রামের বাসিন্দা বিজয় দাসের সঙ্গে দেখাশোনা করে বিয়ে হয়। মৃতার বাবা পল্টু দাসের অভিযোগ, বিয়ের পর থেকে স্বামী, শ্বশুর-শাশুড়ি তার মেয়েকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালাত। ঘটনার দু’দিন আগে শ্বশুরবাড়ির লোকজন তার মেয়েকে মারধর করে তাদের বাড়িতে রেখে চলে যায়। শনিবার বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে স্বামীর সঙ্গে তাদের মেয়ের ফোনে ঝগড়ার কারণে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মঘাতী হয়েছে সে। স্বামী, শ্বশুর-শাশুড়ির অত্যাচারের কারণে তাদের মেয়ে আত্মঘাতী হয়েছে বলে দাবি বাবা পল্টু দাসের। এ বিষয়ে তারা ভাতার থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। অন্যদিকে এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে মৃতার শ্বশুরবাড়ির আত্মীয়রা। বিজয় দাসের জামাইবাবু অনুপ দাসের দাবি, কয়েক বছর ধরে সীমার সঙ্গে বলগোনা গ্রামের এক যুবকের  বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক তৈরি হয়। একাধিকবার সভা করে মীমাংসা হয়। অশান্তি মিটিয়ে নেওয়া হয়। গত বুধবার ওই যুবকের সঙ্গে পুনরায় আপত্তিকর অবস্থায় তার স্ত্রীকে দেখে ফেলে বিজয়। এরপর সীমাকে তার বাপের বাড়িতে দিয়ে আসা হয়। স্বামী আপত্তিকর অবস্থায় তাকে দেখে ফেলার কারণেই সে আত্মঘাতী হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, অভিযোগ জমা পড়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। পুলিশ ময়না তদন্তের জন্য মৃতদেহটি বর্ধমান মেডিকেল কলেজের পুলিশ মর্গে পাঠায়।

LEAVE A REPLY