কংগ্রেস কাউন্সিলরকে তৃণমূলে যোগদানকে ঘিরে জেলা সভাপতি ও টাউন সভাপতির মধ্যে প্রকাশ্যে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব

0
113

নিজস্ব প্রতিনিধি,বাঁকুড়া: এক কংগ্রেস কাউন্সিলর কে যোগদান কে ঘিরে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব এলো প্রকাশ্যে। ঘটনা বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুরের। এই যোগদান কে ঘিরে বিষ্ণুপুরের সাংগঠনিক জেলা তৃনমূল সভাপতি ও বিষ্ণুপুর শহর তৃনমূল সভাপতির গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব এলো প্রকাশ্যে। জেলা সভাপতির বিরুদ্ধে উঠল পার্টি ভেঙ্গে দেওয়ার অভিযোগ। খোদ দলের টাউন সভাপতি এই অভিযোগ সানালেন সভাপতির বিরুদ্ধে। সুত্রের খবর তৃনমূলের টিকিট না পেয়ে দলের প্রতি ক্ষোভ উগরে দিয়ে কংগ্রসের টিকিট নিয়ে বিষ্ণুপুর পুরসভার ৪ নং ওয়ার্ড থেকে নির্বাচিত হন শ্রীকান্ত ব্যানার্জী। শনিবার ওই কংগ্রেস কাউন্সিলর কে তৃনমূলে যোগদানের জন্য ডেকে পাঠায় জেলা তৃনমূল সভাপতি। জানা গেছে বিষ্ণুপুর পৌর ডরমিটরীতে আনুষ্ঠানিক যোগদানের আয়োজনও করা হয়। কিন্তু সেই আয়োজন গেল ভেস্তে। ডেকেও তৃনমূলের বিক্ষুব্ধ কংগ্রেস কাউন্সিলরকে যোগদান করাতে পারলেন না বিষ্ণুপুর সাংগঠনিক জেলা সভাপতি অলোক মুখার্জী। রাজ্য নেতৃত্বের নির্দেশ না পাওয়ায় ওই কংগ্রেস কাউন্সিলরকে এখনই যোগদান করাতে পারেননি তৃনমূল জেলা সভাপতি। এই ঘটনাকে ঘিরে দলের সভাপতির বিরুদ্ধে প্রশ্ন তুলেছেন দলের একটা অংশ। রাজ্য নেতৃত্বের নির্দেশ না পেয়ে কেন ওই কংগ্রেস কাউন্সিলর ও তার অনুগামীদের ডাকা হয়েছিল তৃনমূলের যোগদানের জন্য তা নিয়ে সভাপতির বিরুদ্ধে উঠেছে প্রশ্ন। রাজ্য নেতৃত্বের নির্দেশ না মেনে জেলা সভাপতির এই কাজ কে দলবিরোধী কাজ বলে মনে করছে বিষ্ণুপুরের তৃনমূলের একটা অংশ। বিষ্ণুপুরের টাউন সভাপতি তথা বিষ্ণুপুর পুরসভার ১ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সুনীল দাসের অভিযোগ, দলের নেতাদের অন্ধকারে রেখে নিজের মতন কাজ করছেন জেলাশাসক সভাপতি। টাউন সভাপতিকে না জানিয়ে জেলা সভাপতি নিজের মত করে কাজ করে দলের মধ্যে বিভাজন করার চেষ্টা করছেন। বিক্ষুব্ধ তৃনমুলের কংগ্রেস কাউন্সিলর কে যোগদান নিয়ে তৎপর হয়ে উঠেছেন সভাপতি অথচ বিক্ষুব্ধ তৃনমূলের তিন নির্দল কাউন্সিলরকে যোগদান নিয়ে উনার কোন ততপরতা নেই কেন প্রশ্ন তুলেছেন টাউন সভাপতি। অভিযোগ রাজ্য নেতৃত্বের নির্দেশ কে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে নিজের পছন্দের নেতাদের নিয়ে কাজ করে দলের মধ্যে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব বাড়াচ্ছেন জেলা সভাপতি। এই বিষয়ে রাজ্য নেতৃত্বের কাছে দরবার করছে দলের টাউন সভাপতি। বিষ্ণুপুর সাংগঠনিক জেলা তৃনমূল সভাপতি অলোক মুখার্জীর দাবি, কংগ্রেস কাউন্সিলরের যোগদানের আবেদন রাজ্যে জানানো হয়েছে এই বিষয়ে রাজ্য নেতৃত্ব যা সিদ্ধান্ত নেবে সেটায় করা হবে।

LEAVE A REPLY