পুরুলিয়া জেলা জুড়ে রাস্তা আটকে বিক্ষোভ আদিবাসী কুড়মি সমাজের

0
30

সাথী  প্রামানিক, পুরুলিয়া, ৩ সেপ্টেম্বর: করম পরবে পূর্ণ দিবস সরকারি ছুটির দাবিতে পুরুলিয়া জেলার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা অবরোধ করল আদিবাসী কুড়মি সমাজ। এতে সামিল হয় সমাজের অন্যান্য শাখা সংগঠনও। আজ সকাল ছটা থেকে টামনা থানার অন্তর্গত কাঁসাই নদীর সেতুর কাছে ৩২ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ করেন সমাজের লোকজন। ব্যস্ততম ওই রাস্তার দুই পাশে প্রচুর যান আটকে পড়ে। এর মধ্যে যাত্রীবাহী যান, পণ্যবাহী লরি যেমন ছিল তেমনই মোটর সাইকেলকেও আটকে দেন অবরোধকারীরা। আদিবাসী কুড়মি সমাজের মুখ্য উপদেষ্টা অজিত মাহাতো  অবশ্য রোগী শিশুদের নিয়ে যান চলাচলে শিথিলতা দেওয়া হয় বলে জানান।  পুরুলিয়া মফঃস্বল থানার ডুমুরডি মোড়ে বরাকরগামি রাজ্য সড়ক অবরোধ করেন সমাজের সদস্যরা। এছাড়া জয়পুর থানার বোকারো যাওয়ার রাস্তা অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে। স্থানীয় বড়গ্রামের কাছে ওই রাস্তা অবরোধ করে। আগামী ৬ই সেপ্টেম্বর করম দিবস, জঙ্গল মহলের একটা বড়ো পরব। আর এই উৎসবে পুর্ণ দিবস ছুটির দাবিতে দীর্ঘদিনের আন্দোলন জঙ্গল মহলের বাসিন্দাদের। সম্প্রতি রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে অর্ধদিবস ছুটি ঘোষণা করা হলেও তা মানতে নারাজ আদিবাসী কুড়মি সমাজ। তারা পুর্ণ দিবস ছুটির দাবিতে আজ ১২ ঘন্টা পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, ঝাড়গ্রাম, পশ্চিম মেদিনীপুর এই চার জেলায় রাস্তা অবরোধ কর্মসূচি পালন করে আদিবাসী কুড়মি সমাজ। সমাজের মুখপাত্র অজিত প্রসাদ মাহাতো বলেন, “আজকের কর্মসূচিতে সাধারণ মানুষের সমস্যা হয়েছে ঠিকই কিন্তু এটা ছাড়া আর আমাদের কোনও উপায় ছিল না।  দাবিকে সমর্থন করলেও ঘন্টার পর ঘন্টা রাস্তা অবরোধকে সমর্থন করেন  না রাস্তায় অবরুদ্ধ হওয়া সাধারণ মানুষ। দুপুর দেড় টা নাগাদ অবরোধ তুলে নেয় আদিবাসী কুড়মি সমাজ। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে আরও এক ঘন্টা লাগে। তার পরই যান চলাচল স্বাভাবিক হয়। বড়গ্রামে পথ অবরোধের নেতৃত্ব দেওয়া লেগাচারি কুর্মী সমাজের মোড়ল নৃপেন মাহাতো বলেন, “আচমকা পথ অবরোধ কর্মসূচি করায় সাধারণ মানুষ সমস্যায় পড়েছেন। এটা দেখে আমরা দেড়টা নাগাদ অবরোধ তুলে নিই।”

LEAVE A REPLY