বড়সড় জলিয়াতি বাঁকুড়ায়,জীবিত ব্যক্তিকে মৃত সাজিয়ে জাল ওয়ারিশ শংসাপত্র বের করে সম্পত্তি হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

0
87

নিজস্ব প্রতিনিধি,বাঁকুড়াঃ তৃণমূল নেতার মদতে এক জীবিত ব্যক্তিকে মৃত সাজিয়ে জাল ওয়ারিশ সার্টিফিকেট বের করে সম্পত্তি হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ। সম্পত্তি ফিরে পেতে ও ষড়যন্ত্রকারীদের আইন অনুযায়ী শাস্তির ব্যবস্থার দাবি নিয়ে প্রশাসনের দ্বারস্থ বাঁকুড়ার তালডাংরা থানার বারমাস্যা গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত সরকারী কর্মচারী। বাঁকুড়ার তালডাংরা থানার বারোমাস্যা গ্রামের বাসিন্দা বিশ্বনাথ মান্না। একজন প্রাক্তন রাজ্য সরকারের কর্মী। সম্প্রতি নজরে আসে বিশ্বনাথ মান্নার বিপুল সম্পত্তির একটা বড় অংশ রেকর্ড হয়ে গেছে এক নিকটস্থ আত্মীয়ের নামে।পরে সেই জমিও হস্তান্তর হয়ে যায় স্থানীয় তৃণমূল নেতার নামে এমন অভিযোগ সামনে উঠে আসছে। এই বিষয়ে জানতে এসে চক্ষু চড়কগাছ বিশ্বনাথের পরিবারের। তাঁর এক আত্মীয়া বিশ্বনাথ মান্নাকে মৃত সাজিয়ে জাল শংসাপত্র তৈরি করে নিজেকে একমাত্র উত্তরাধিকারী স্থাপন করে রাতারাতি বিশ্বনাথ মান্নার সম্পত্তির একটা বড় অংশ নিজের নামে রেকর্ড করে নেয় বলে অভিযোগ। পরে ওই আত্মীয়ার কাছ থেকে বিশ্বনাথ মান্নার প্রতিবেশি হিসেবে পরিচিত গ্রামের এক তৃণমূল নেতা ওই সম্পত্তি নিজের নামে করে নেয়। এই ঘটনার পর থেকে সম্পত্তি ফিরে পেতে ও জাল কারবারকারী বেআইনীভাবে সম্মত্তি হাতিয়ে নেওয়া যুক্ত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার আর্জি জানিয়েছেন বিশ্বনাথ মান্না ও তার পরিবার। ওয়ারিশ সার্টিফিকেটে বিশ্বনাথ মান্নাকে মৃত সাজিয়ে নিজেকে একমাত্র উত্তরাধিকারী হিসেবে দাবি করেন নমিতা পাল নামে এক আত্মীয়া। এই বিষয়ে নমিতা পালের দাবি তিনি এই বিষয়ে  কিছুই জানেন না। তালডাংরা গ্রাম পঞ্চায়েতের তরফে জানানো হয়েছে যে ওয়ারিশ সার্টিফিকেট নিয়ে এই ধরনের সমস্যা তৈরি হয়েছে সেটা প্রধান ও পঞ্চায়েত সদস্যের সই জাল করে বানানো হয়েছে। তবে কে এই জাল ওয়ারিশ সার্টিফিকেটের কাজ করেছে তার তারা জানেন না। পঞ্চায়েত প্রধানের সই সিল ও স্থানীয় সদস্যের সই দেখে ধরে নেওয়া হয় ওই ওয়ারিশ সার্টিফিকেট ঠিক ছিল। পরে নজরে আসার পর তিনজনের কমিটিতে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তালডাংরা ভুমি ও ভুমি সংস্কার দফতর। স্থানীয় তৃণমূল নেতা বিজয় মান্না প্রভাব খাটিয়ে এই বেআইনী কাজ করেছেন বলে যে অভিযোগ সামনে এসেছে সেই প্রসঙ্গে তালডাংরা ব্লক তৃণমূল সভাপতি বলেন, এর সাথে বিজয় মান্নার কোন সম্পর্ক নেই। ঘটনার খবর পাওয়ার পর তাঁকে ডেকে পাঠিয়ে যাচাই খবর নেওয়া হয়। এরপরে যদিও কোন যোগ থাকে তাহলে দলের তরফ থেকে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি। এই ঘটনা সামনে আসতেই কটাক্ষ করেছে বিজেপি। জাল কারবারে ছেয়ে গেছে রাজ্য। আর সব ক্ষেত্রে নাম উঠে এসেছে তৃণমূলের। এইসব জাল কারবার করে এখানে তৃণমূলের নেতা আমলা মিলেমিশে খাবার জায়গা করেছে। এটা নিয়ে উচ্চ পর্যায়ের তদন্তের প্রয়োজন বলে দাবি করছে বিজেপি।

LEAVE A REPLY