বিধান রায়ের পর বাংলার নব রূপকার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ঃ মলয় ঘটক

0
44

সংবাদদাতা,লাউদোহাঃ  বিধানচন্দ্র রায় বাংলা গড়েছেন আর পশ্চিমবাংলার নব রূপকার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়- “দিদির সুরক্ষা কবজ” কর্মসূচিতে এসে একথা বললেন মন্ত্রী মলয় ঘটক। রবিবার দুর্গাপুর-ফরিদপুর (লাউদোহা) ব্লকের গৌড়বাজার পঞ্চায়েত এলাকায় শাসক দলের পক্ষ থেকে পালন করা হলো “দিদির সুরক্ষা কবজ”- কর্মসূচি। কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন পাণ্ডবেশ্বরের তৃণমূল বিধায়ক নরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী, শাসক দলের লাউদোহা ব্লকের সভাপতি সুজিত মুখোপাধ্যায়, স্থানীয় অঞ্চল সভাপতি উৎপল দত্ত সহ দিদির নির্বাচিত দূতেরা। এদিন বেলা দশ’টা নাগাদ মাধাইগঞ্জ গ্রামের সর্বমঙ্গলা মন্দিরে পুজো দিয়ে কর্মসূচির সূচনা করেন মন্ত্রী মলয় ঘটক। এরপর মন্দির চত্বরে বসেই মন্ত্রী মলয় ঘটক, বিধায়ক নরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী ও দলের ব্লক সভাপতি সুজিত মুখোপাধ্যায় স্থানীয় বাসিন্দাদের অভাব অভিযোগের কথা শোনেন। স্থানীয়দের চাহিদার কথা, না পাওয়ার কথা সবই লিপিবদ্ধ করা হয় কর্মসূচির নিয়ম মেনে। মলয় ঘটক বলেন, কেন্দ্রের বিজেপি সরকার মানুষের স্বার্থে কোন ভাল কাজ করছে না। কাজ করার জন্যই দেশের মানুষ বিজেপিকে ভোট দিয়েছিল।‌ মানুষের চাহিদা পূরণে পুরোপুরি ব্যর্থ কেন্দ্রের বিজেপি সরকার। পশ্চিমবাংলায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে একাধিক উন্নয়নমূলক কর্মযজ্ঞ চলছে রাজ্যজুড়ে। কমবেশি প্রত্যেক রাজ্যবাসী কোন না প্রকল্পের সুফল পাচ্ছেন। মানুষের স্বার্থে প্রকল্প গুলি চালু করেছে রাজ্য সরকার, আর মানুষের কাছে প্রকল্পের সুবিধা পৌছে দিচ্ছে স্থানীয় তৃণমূল নেতা কর্মীরা। এরপরই মন্ত্রী মলয় ঘটক বলেন, বিধানচন্দ্র রায় পশ্চিমবাংলার জন্য প্রচুর কাজ করেছেন, তিনি বাংলার প্রথম রূপকার। আর মমতা ব্যানার্জি হচ্ছেন বাংলার নব রূপকার। মমতা ব্যানার্জি হচ্ছেন প্রকৃত জননেত্রী। তিনি মানুষের সুবিধা ও অসুবিধার কথা বোঝেন। তাই জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত একাধিক প্রকল্প তিনি রাজ্যে চালু করেছেন। রাজ্যের প্রতিটি মানুষ কোন না কোন প্রকল্পের সুবিধা পাচ্ছেন। ‌ এরপরই মন্ত্রীসহ দিদির দূতেরা মাধাইগঞ্জে কর্মসূচি শেষ করে পৌঁছান শ্রীকৃষ্ণপুরে। সেখানে একটি আইসিডিএস সেন্টার পরিদর্শন করেন তারা।‌ পড়ুয়া ও অভিভাবকদের কাছে জানতে চান সেন্টারে ঠিকমতো পড়াশোনা ও পুষ্টিকর খাবার দেওয়া হয় কিনা। এরপর তারা যান বৈদ্যনাথপুর গ্রামে, সেখানে স্থানীয়দের সাথে আলাপচারিতা কর্মসূচিতে যোগ দেন তারা। মন্ত্রীসহ দিদির দূতেরা দুপুরে মধ্যাহ্নভোজন সারেন মাধাইগঞ্জ গ্রামের স্থানীয় তৃণমূল কর্মী সোমনাথ মান্ডির  বাড়িতে। এছাড়াও এদিনের কর্মসূচিতে ছিল গৌড়বাজার পঞ্চায়েত পরিদর্শন, স্থানীয় মন্দিরে জনসংযোগ কর্মসূচি ও নজরুল ভবনে কর্মীসভা। রাত্রিবেলায় গৌড়বাজার পশ্চিম অংশের বাসিন্দা মহেশ্বর বাগদির বাড়িতে হবে নিশি যাপন কর্মসূচি।

LEAVE A REPLY