পঞ্চায়েত অফিসেই সানাই উলু ধ্বনিসহ ঘটা করে উপ-প্রধানের আইবুড়ো ভাতের অনুষ্ঠান

0
61

নিজস্ব প্রতিনিধি,বর্ধমানঃ বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হতে চলেছেন উপ-প্রধান। সেই আনন্দে কর্মসংস্কৃতি লাটে তুলে দিয়ে গ্রাম পঞ্চায়েত অফিসে সানাইয়ের সুর বাজিয়ে ও উলুর ধ্বনী দিয়ে ঘটা করে হল উপ-প্রধানের বিয়ের আইবুড়ো ভাতের অনুষ্ঠান।আয়োজনও ছিল এলাহি।যে অনুষ্ঠানের আয়োজক আবার খোদ পঞ্চায়েত প্রধান ও পঞ্চায়েত সদস্যের একাংশ ।মুখ্যমন্ত্রী পূর্ব বর্ধমান জেলা সফরে আসার আগে শুক্রবার  এমন ঘটনা ঘটেছে জামালপুর ১ গ্রাম পঞ্চায়েত অফিসে।যা জানার পর তৃণমূল নেতৃত্ব যেমন চটে গিয়েছেন তেমনই ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন বিরোধীরাও। রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের পরিচালনাধীনে রয়েছে জামালপুর ১ গ্রাম পঞ্চায়েত। এই পঞ্চায়েতের মোট সদস্য সংখ্যা ১৪ জন।তার মধ্যে বেশিরভাগই মহিলা সদস্যা। পঞ্চায়েতের প্রধান হলেন ডলি নন্দী।আর উপ-প্রধান হলেন শেখ সাহাবুদ্দিন মণ্ডল। কাগজে কলমে ডলি নন্দী প্রধান হলেও পঞ্চায়েতের দণ্ডমুণ্ডের মূল কর্তা হলেন সাহাবুদ্দিন। অন্য সদস্যদের থেকে বয়সেও তিনি অনেক ছোট। পঞ্চায়েত অফিস সংলগ্ন সেলিমাবাদ গ্রামে বাড়ি সাহাবুদ্দিনের। আগামী ৫ জুলাই উপ- প্রধান সাহাবুদ্দিন মণ্ডলের বিয়ের দিন নির্দিষ্ট হয়েছে। এদিন পঞ্চায়েত অফিসে ঘটা করে উপ-প্রধানের বিয়ের আইবুড়ো ভাতের অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন।আয়োজনও ছিল একেবারে এলাহি। একাধিক কাঁসার বাটিতে ও কাঁসার থালায় ভাত সহ হরেক রকম রান্না খাবার সাজিয়ে দিয়ে তাঁরা উপ-প্রধানকে খাওয়াতে বসান। ভাত, মাংস,ডাল,তরকারি ছাড়াও মেনুতে ছিল বড় মাছের মাথার মুড়ো,পায়েস দই, মিষ্টি ও চাটনি। প্রধান ছাড়াও সদস্যা চন্দনা পান,সৈয়দ মল্লিক, রূপালি বিশ্বাস এবং সমিতির সদস্যা মণিরা বেগম অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকেন।তাঁদের সঙ্গে অনুষ্ঠানে যোগ দেন পঞ্চায়েতের দুই আধিকারিক অরুণ মালিক,জয়ন্ত ভট্টাচার্য সহ অন্যরা।প্রধান ও  সদস্যরা প্রথমে উপ-প্রধানের কপালে দইয়ের ফোঁটা পরিয়ে দেন। পরে কোন সদস্য উপ-প্রধানের মুখে তুলে দেন পায়েস আবার কেউ মুখে তুলে দেন বড় মাছের মুড়ো।পঞ্চায়েত অফিসের চেয়ারে বসেই হাসি মুখে বিয়ের আইবুড়ো ভাতের অনুষ্ঠান উপভোগ করেন সাহাবুদ্দিন। সরকারী অফিসে হওয়া উপ-প্রধানের  এই আইবুড়ো ভাত অনুষ্ঠানের ছবি দুপুরে সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হতেই প্রশাসনিক স্তরে ও রাজনৈতিক মহলে শোরগোল পড়ে যায়।তাঁর পরেই  শুরু হয়ে যায় ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার যাবতীয় প্রক্রিয়া।বিডিও  শুভঙ্কর মজুমদার বলেন,“ঘটনা বিষয়ে আমার কিছুই জানা নেই। তবে এমনটা হয়ে থাকলে বাজে কাজই হয়েছে। কেন এমনটা হল সেই বিষয়ে খোঁজ নেবেন বলে বিডিও জানিয়েছেন” । অন্যদিকে ঘটনা আড়াল করতে তৃণমূল কংগ্রেসের জেলার মুখপত্র প্রসেনজিৎ দাস বলেন , সবটাই মিথ্যা অপপ্রচার। আইবুড়ো ভাতের অনুষ্ঠান নয়। উপ-প্রধান পঞ্চায়েত অফিসে দুপুরের লাঞ্চের ভাত খাচ্ছিলেন। তাহলে সানাইয়ের সুর ,শঙ্খ ধ্বনী ,উলুর ধ্বনী এইসব কেন?  তার উত্তর অবশ্য প্রসেনজিৎ বাবুর কাছ থেকে মেলে নি“ । ঘটনার কথা শুনে জেলা বিজেপি নেতা মৃত্যুঞ্জয় চন্দ্র বলেন,“এটাই তৃণমূল কংগ্রেসের আসল স্বরূপ। দেশের মধ্যে একমাত্র তৃণমূলের পঞ্চায়েত সদস্যরাই পঞ্চায়েত অফিসে সানাইয়ের সুর বাজিয়ে ও উলুর ধ্বনী দিয়ে দুপুরের লাঞ্চ সারেন। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী কর্মসংস্কৃতি ফেরানোর কথা বলছেন। আর তাঁর দলেরই পঞ্চায়েত প্রধান,উপপ্রধান ও সদস্যরা অফিস আওয়ার্সে ঘটা করে পঞ্চায়েত অফিসে উপ-প্রধানের আইবুড়ো ভাতের অনুষ্ঠান করছেন।এর থেকে বড় লজ্জার আর কিছু হতে পারে না। বাংলার মানুষ ওদের এইসব  কর্মকাণ্ডের জবাব একদিন দিয়ে দেবে “। 

LEAVE A REPLY