চাপুইয়ের মৃতের পরিবারের সঙ্গে দেখা করে সাহায্যের আশ্বাস মলয় ঘটকের

0
250

নিজস্ব সংবাদদাতা,রানীগঞ্জঃ রাণীগঞ্জের জেমারির অন্তর্গত চলবলপুর গ্রামের কাছে অবস্থিত সোলার প্ল্যান্ট এলাকার একটি পরিত্যক্ত খনি থেকে রহস্যজনকভাবে কাকা শ্বশুর এবং জামাইয়ের মৃতদেহ উদ্ধারের ঘটনার পরে রবিবার রাজ্যের আইনমন্ত্রী মলয় ঘটক,তৃণমূল হিন্দি সেল ও গ্রাম পঞ্চায়েত মৃতর পরিবারের সঙ্গে দেখা করেন।পরিবারের সদস্যদের সাথে দেখা করে তাদের সম্ভাব্য সব ধরনের সাহায্যের আশ্বাস দেন মন্ত্রী। উল্লেখ্য,বৃহস্পতিবার সকালে স্থানীয় লোকজনের খবরে রাণীগঞ্জ থানার নিমচা ফাড়ির পুলিশ এলাকার একটা  গর্ত থেকে  শ্বশুর ও জামাইয়ের মৃতদেহ  উদ্ধার করে,ঘটনাটি চলবলপুর এলাকার সোলার প্ল্যান্ট প্রকল্প এলাকার। পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য আসানসোল জেলা হাসপাতালে পাঠানো হয়।  মৃতদের নাম ৪২ বছর বয়সী বিপিন ভূঁইয়া এবং ২১ বছর বয়সী রাকেশ কুমার, চাপুই নম্বর ২ বালির বাঙ্কারের বাসিন্দা। নিহত বিপিন ভূঁইয়ার স্ত্রী মীনা ভূঁইয়া দাবি করেন, তিনি নিশ্চিত যে দুজনকেই খুন করা হয়েছে। একই দিন সন্ধ্যায় জামাই রাজেশ কুমার হাঁটতে বাড়ি থেকে বের হন। তিনি বলেন, তার স্বামী ও জামাইকে নিশ্চয়ই কেউ হত্যা করে সেখানে ফেলে দিয়েছে। একই সঙ্গে পুলিশ সূত্রে খবর, পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে খালি মদের বোতল ও গাঁজা পান উদ্ধার করেছে। পুরো ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।  রবিবার রাজ্যের আইনমন্ত্রী মলয় ঘটক, জেলা পরিষদের চেয়ারপার্সন সুভদ্রা বাউরি, প্রাক্তন কাউন্সিলর বিশ্বনাথ বাউরি  প্রমুখ মৃতের বাড়িতে তাদের পরিবারের সাথে দেখা করতে আসেন। নিহতের বাড়িতে গিয়ে স্বজনদের সঙ্গে দেখা করেন। এ সময় নিহত বিপিন ভূঁইয়ার স্ত্রী মীনা ভূঁইয়া জানান, ওই ঘটনায় স্বামীর মৃত্যু হওয়ায় পরিবারের সামনে চরম আর্থিক সংকট দেখা দিয়েছে। পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি ছিলেন তার স্বামী। তিনি বলেন, কারও সঙ্গে শত্রুতা না থাকলেও বাড়ির দুই জনকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে। তিনি বলেন, তারা শুধু ন্যায়বিচার চায় এবং ঘটনার সঙ্গে জড়িত দোষীদের তদন্ত করে শাস্তি দেওয়া হোক। একই সঙ্গে মন্ত্রী মলয় ঘটক বলেন, এটা খুবই দুঃখজনক ঘটনা। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এলেই প্রকৃত সত্য বেরিয়ে আসবে। এটি হত্যার ঘটনা প্রমাণিত হলে এর সঙ্গে জড়িত অপরাধীরা রেহাই পাবে না। তিনি বলেন, পুলিশ অবিলম্বে পুরো বিষয়টি তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে, এ জন্য তিনি পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গেও কথা বলবেন। নিহতদের পরিবারকে সব ধরনের সহায়তা দেওয়ার আশ্বাসও দেন তিনি।

LEAVE A REPLY