লাউদোহার শীর্ষা গ্রামে ফের বাড়িতে ফাটল,এলাকায় আতঙ্ক

0
197

সংবাদদাতা,লাউদোহাঃ বুধবার রাতে দুর্গাপুর ফরিদপুর ব্লকের শীর্ষা গ্রামে নতুন করে কয়েকটি বাড়িতে ফাটল দেখা দেয়।পুনর্বাসনের দাবিতে সোচ্চার হয়েছেন বাসিন্দারা। দুর্গাপুর-ফরিদপুর ব্লকের লাউদোহা পঞ্চায়েতের শীর্ষা গ্রামে মাস দুই আগে খনি গর্ভে বিস্ফোরণের ফলে বেশ কয়েকটি বাড়িতে ফাটল ধরে। ক্ষতিগ্রস্ত হয় অনেক গুলি বাড়ি বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। ইসিএল এর ঝাঁঝরা প্রজেক্ট এর খনিতে বিস্ফোরণের ফলেই এই ঘটনা বলে দাবি করেন ক্ষতিগ্রস্তরা। ঘটনার পরই পুনর্বাসনের দাবিতে সোচ্চার হয়েছিলেন বাসিন্দারা। শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকেও ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনের দাবি জানানো হয়েছিল। বড়সড়ো দুর্ঘটনার আশঙ্কায় সেই সময় সংস্থার পক্ষ থেকে অস্থায়ী শিবির করে রাখা হয়েছিল পনেরোটি পরিবারকে। দেওয়া হয়েছিল পুনর্বাসনের প্রতিশ্রুতিও। কিন্তু এখনো সেই প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়িত হয়নি। উল্টে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে অস্থায়ী শিবিরও। শিবিরে আশ্রয় নেওয়া পরিবারগুলি বাধ্য হয়ে ফের ফিরেছে নিজেদের বাড়িতে। এরমধ্যেই বুধবার রাত্রি ন’টা, সাড়ে নটা নাগাদ ফের কয়েকটি বাড়িতে ফাটল ধরে বলে স্থানীয়রা জানান। সঞ্জয় বাউরি নামে এক ব্যক্তি বলেন, সে সময় বাড়িতে বসে খাওয়া দাওয়া করছিলাম। আচমকা দেখি বাড়িতে ফাটল। ভয়ে তাড়াতাড়ি সকলে বাড়ির বাইরে বেরিয়ে আসি। সঞ্জয়বাবুর বাড়ির অদূরে অন্য একটি বাড়ির খড়ের চাল ভেঙ্গে পড়ে সে সময়। ঘটনার পরে এলাকা জুড়ে তৈরি হয়েছে আতঙ্ক। বৃহস্পতিবার তৃণমূলের শ্রমিক নেতা পলাশ পাণ্ডে জানান, জীবন হাতে নিয়ে শীর্ষা গ্রামের বাসিন্দারা বসবাস করছেন। দ্রুত বাসিন্দাদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করার দাবি জানান পলাশ বাবু। অন্যদিকে জেলা পরিষদের কর্মাধ্যক্ষ তথা তৃণমূলের ব্লক সভাপতি সুজিত মুখোপাধ্যায় বলেন, যেকোনো সময় বড়সড় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। সেরকম কিছু ঘটলে তার দায় ঝাঁঝরা প্রজেক্ট কর্তৃপক্ষকে নিতে হবে। পুনর্বাসনের দাবিতে শীঘ্রই দল আন্দোলনে নামবে বলে জানান সুজিতবাবু।

LEAVE A REPLY