দ্বন্দ্ব,ভাঙচুর সমর্থনযোগ্য নয়,বললেন বিধায়ক তাপস বন্দ্যোপাধ্যায়

0
36

নিজস্ব সংবাদদাতা,অন্ডালঃ  শুক্রবার কাজোরা গ্রামে দলীয় সম্বর্ধনা সভা ঘিরে সংঘর্ষে জড়িয়ে ছিল তৃণমূলের দুপক্ষ। ভাঙচুর হয়েছিল দলীয় কার্যালয়ে। শনিবার কাজোরায় এসে এই ঘটনার সমালোচনা করলেন দলের রানীগঞ্জের বিধায়ক তাপস বন্দ্যোপাধ্যায়। শুক্রবার সন্ধ্যায় কাজোরা গ্রামে তৃণমূলের একটি গোষ্ঠী সম্বর্ধনা সভার আয়োজন করেছিল।‌ সভাতে সম্বর্ধনা দেওয়ার কথা ছিল অন্ডাল ব্লকের নবনির্বাচিত ব্লক সভাপতি কালোবরন মন্ডলকে। কিন্তু তৃণমূলের গোষ্ঠীদন্দ্বের কারণে সম্বর্ধনা সভাটি বানচাল হয়ে যায়। দলীয় সুত্রে জানা যায়, ওই সম্বর্ধনা সভায় আমন্ত্রণ জানানো হয়নি অন্ডাল ব্লকের নবনির্বাচিত সহ-সভাপতি মলয় চক্রবর্তীকে। আমন্ত্রণ না জানানো নিয়ে মলয়বাবু ও ব্লক সভাপতি কালোবরন বাবুর অনুগামীদের মধ্যে বচসা ও পরে মারপিট বেঁধে যায়। ভেস্তে যায় সম্বর্ধনা সভা। অভিযোগ, এরপর কালোবরণ বাবুর অনুগামীরা মলয় চক্রবর্তীর অনুগামীদের কার্যালয়ে ভাঙচুর চালায়। দলীয় কার্যালয়ে ভাঙচুরের ঘটনা অস্বীকার করা হয় কালোবরণ বাবুর অনুগামীদের তরফ থেকে। পরে অন্ডাল থানার বিশাল পুলিশ বাহিনী এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। শনিবারও ঘটনার জেরে উত্তেজনা ছিল কাজোরা এলাকায়। এদিন সন্ধ্যেবেলায় ভাঙচুর হওয়া মলয় অনুগামীদের দলীয় কার্যালয়ে আসেন এলাকার বিধায়ক তাপস বন্দ্যোপাধ্যায়। দ্বন্দ্ব, ভাঙচুর এর ঘটনার সমালোচনা করার পাশাপাশি তিনি বলেন, এই ধরনের ঘটনা কখনোই বাঞ্চনীয় নয়। দলেরই কিছু অতি উৎসাহী কর্মী এই ঘটনা ঘটিয়েছে। বিষয়টি দলের ঊর্ধ্বতন নেতৃত্বকে জানানো হয়েছে। তারা বিষয়টির নিষ্পত্তি করবে বলে তাপসবাবু জানান। পাশাপাশি তিনি বলেন, যারা ভাঙচুর করেছে তারাও দলীয় কর্মী। ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচন ও সাম্প্রতিককালের আসানসোল লোকসভা উপনির্বাচনে সবাই এক সাথে কাজ করেছে। দলের মধ্যে দ্বন্দ্ব থাকতেই পারে, আলোচনার মাধ্যমে তার সমাধান করতে হবে। সবাইকে বুঝতে হবে এই ধরনের ঘটনা ঘটলে দল ও দলীয় নেতৃত্বকে অস্বস্তির মধ্যে পড়তে হয়। তাই এই ধরনের ঘটনা সবাইকে এড়িয়ে চলার পরামর্শ দেন তাপসবাবু।

LEAVE A REPLY