আঞ্চলিক পরিবহন দফতরে হানা দিয়ে চা বানিয়ে খেয়ে,চা তৈরীর ইলেকট্রিক কেটলি নিয়ে চম্পট দিল চোর

0
53

নিজস্ব প্রতিনিধি,বাঁকুড়াঃ আজব চুরির ঘটনা ঘটল বাঁকুড়ার আঞ্চলিক পরিবহন দফতরে। গতকাল রাতে ওই দফতরের দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে দফতরের সমস্ত আলমারি ভাঙে দুস্কৃতিরা। তছনছ করা হয় সমস্ত নথিপত্র। কিন্তু শেষ অবধি তেমন কিছু না পেয়ে দফতরের চা করার যন্ত্রে ইলেকট্রিক কেটলিতে চা বানিয়ে খেয়ে অবশেষে চা তৈরীর যন্ত্র নিয়েই চম্পট দিল হতাশ চোরের দল। আজ আঞ্চলিক পরিবহন দফতর খুলতে বিষয়টি নজরে আসতেই ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে বাঁকুড়ার জেলা শাসকের দফতর চত্বরে। বাঁকুড়ার জেলা শাসক ও জেলা আদালত চত্বরেই রয়েছে জেলার আঞ্চলিক পরিবহন দফতর। শনি ও রবিবার থাকায় গত দুদিন ওই দফতরে আসেননি কর্মীরা। আজ বেলা দশটা নাগাদ কর্মীরা অফিসে এলে দেখেন দফতরের পিছনের দিকে থাকা একটি দরজার তালা ভাঙা।সন্দেহ হওয়ায় দফতরের ভেতরে ঢুকে কর্মীরা দেখেন দফতরে থাকা সমস্ত আলমারির দরজা ভাঙা।টেবিলে থাকা নথিপত্র তছনছ হয়ে রয়েছে। ড্রয়ারে রাখা পয়েন্ট অফ সেল মেশিন রাখা রয়েছে টেবিলের উপর। কম্পিউটারের যন্ত্রাংশও অক্ষত রয়েছে। শুধু দফতর থেকে হারিয়ে গেছে ইলেকট্রিক কেটলি। দফতরের কর্মীদের চা তৈরী করে খাওয়ার জন্য যে চা কফি ও চিনির পাত্রগুলির ঢাকনা খোলা। পাত্রগুলিতে রাখা চা কফি ও চিনির পরিমাণও বেশ কিছুটা কমেছে বলছে আঞ্চলিক পরিবহন দফতরে কর্মীরা। কর্মীদের একাংশের ধারনা গোটা অফিস তন্নতন্ন করে খুঁজেও নগদ অর্থ না পেয়ে হতাশ চোর বা চোরের দল ওই অফিসে রাখা ইলেকট্রিক কেটলিতে চা তৈরী করে আরাম করে খায়। পরে ইলেকট্রিক কেটলি নিয়ে চম্পট দেয়। বাঁকুড়ার জেলা শাসক ও জেলা আদালত চত্বরে থাকা আঞ্চলিক পরিবহন দফতর সিসি ক্যামেরায় মোড়া রয়েছে। এলাকায় নাইট গার্ড মোতায়েন থাকার কথা। তারপরও কী করে এমন ঘটনা ঘটলো তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।

LEAVE A REPLY