পুরুলিয়া জেলা জুড়ে তৃণমূলের ফাটল প্রকাশ্যে, বিজয়া সম্মেলনে পাল্টা সভার আয়োজন অন্যদের

0
59

সাথী প্রামানিক, পুরুলিয়া, ১৬ অক্টোবর: পুরুলিয়া জেলা জুড়ে সাংগঠনিক বিজয়া সম্মেলনের পাল্টা সভা করে কার্যত বিদ্রোহ ঘোষণা করলেন বিক্ষুব্ধ তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা কর্মীরা। ব্লক সভাপতির আহ্বানে সাংগঠনিক বিজয়া সম্মেলনে ডাক না পাওয়া ও বঞ্চনার অভিযোগ উঠছে জেলার সব জায়গাতেই। অকারণে এই কাজের তেমনভাবে কড়া হাতে দমন করতে পারছে না জেলা কমিটি। আর এতেই প্রকট হচ্ছে দলের ফাটল। পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে এই ফাটল অন্তর্ঘাতে পরিণত হওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন অভিজ্ঞ নেতা তথা জেলা পরিষদের সভাধিপতি সুজয় ব্যানার্জি। এটা মেরামতের জন্য তিনি যথা সাধ্য চেষ্টা করবেন বলে জানিয়ে দেন। জেলার হুড়া ও পুঞ্চা ব্লকে গত কালই বিজয়া সম্মেলন হয়। সেখানে ডাক না পেয়ে স্বভাবতই উপস্থিত ছিলেন না বিভিন্ন শাখা সংগঠনের পদাধিকারী ও নির্বাচিত জন প্রতিনিধিরা। আজ হুড়া ব্লকের লালপুরে কার্যত তারই পাল্টা সভার আয়োজন করেন বঞ্চনার শিকার হওয়া তৃণমূলীরা। সেখানে  পুরুলিয়া জেলার হুড়া ব্লকে প্রকাশ্যে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব বলে মনে করছেন সমর্থকরা। হুড়া ব্লকের সমস্ত স্তরের তৃণমূল কর্মীদের আয়োজনে এদিন লালপুর কমিউনিটি হলে বিজয়া সম্মেলনটি অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের মন্ত্রী সন্ধ্যারানী টুডু সহ পুরুলিয়া জেলা পরিষদের সভাধিপতি সুজয় ব্যানার্জি, জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি গুরুপদ টুডু, তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাক্তন হুড়া ব্লক সভাপতি সুভাষ মাহাতো, হুড়া পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি প্রসেনজিৎ মাহাতো সহ অন্যান্য শাখা সংগঠনের পদাধিকারীরা। সভায় বক্তব্যে আক্রমণের নিশানা ছিল কাশীপুর বিধানসভার প্রাক্তন বিধায়ক এবং রাজ্য তৃণমূলের সম্পাদক স্বপন বেলঘরিয়া। অভিযোগের সুরে বক্তারা বলেন, বিধান সভা নির্বাচনে নিজের বুথে কুপোকাত হয়েছেন স্বপন বেলথরিয়া। হেরেওছেন। অথচ, তাঁর ছেলে জেলা সভাপতি, মেয়ে পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি। দলের মধ্যে বিভাজন করছেন স্বপন বেলথরিয়া। এটা দলের ক্ষতি হচ্ছে। এই দিকে দলের রাজ্য নেতৃত্বের দৃষ্টি আকর্ষণ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান তাঁরা।

LEAVE A REPLY